ঢাকা, সোমবার,২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

নারী

আ য়ো জ ন পিঠা উৎসব

আব্দুর রাজ্জাক

২৯ জানুয়ারি ২০১৮,সোমবার, ০০:০০


প্রিন্ট


গ্রামীণ সংস্কৃতির বিভিন্ন রেওয়াজ মানিকগঞ্জবাসী বহন করে আসছে সুদীর্ঘকাল থেকেই। গ্রামীণ সংস্কৃতির এই ধারাবাহিকতায় ঘিওর উপজেলার বানিয়াজুরী ইউনিয়নের বহজু গ্রামে অনুষ্ঠিত হয়েছে পিঠা উৎসব। বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা, বারসিকের উদ্যোগে ২২ ধরনের পিঠা তৈরি করেন ১৮ জন নারী। ভোর থেকে দলবেঁধে ঢেঁকিতে চাল গুঁড়ো করে পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে বৈচিত্র্যময় পিঠা তৈরি করেন তারা।
তিন দিন আগে থেকে সংগঠনের সব সদস্য পিঠা উৎসবের প্রস্তুতি নেন। গ্রামজুড়ে পড়ে যায় পিঠা উৎসবের আমেজ। রাষ্ট্রীয় পদকপ্রাপ্ত আদর্শ কৃষক বাবর আলীর আঙিনায় গত বুধবার দিনব্যাপী এ পিঠা উৎসবে বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার প্রবীণ-নবীন ও শিশুরা অংশ নেন। তারা পিঠার উপকরণ ও তৈরির পদ্ধতি সম্পর্কে পরস্পরের সাথে মতবিনিময় করেন।
পিঠা উৎসবে প্রদর্শিত পিঠাগুলোর মধ্যে ছিলÑ পাটিসাপটা, পুলিপিঠা, ফুলপিঠা, তেলচেতি, দুধপুলি, ভেজানো পিঠা, মোরগসংসার, চালের সেমাই, গোশত পিঠা, চিলপুলি, ভাপাপিঠা, গোলাপপিঠা, দুধপুলি প্রভৃতি। প্রদর্শনী চলাকালে অংশগ্রহণকারী নারীরা বাঙালির গ্রামীণ সংস্কৃতিতে এসব পিঠার ব্যবহার ও তৈরির মওসুম সম্পর্কে আলোচনা করেন।
উৎসব অনুষ্ঠানে কৃষক বাবর আলীর সভাপতিত্বে পিঠার ঐতিহ্যগত দিক তুলে ধরে বক্তব্য রাখেনÑ বারসিকের আঞ্চলিক সমন্বয়কারী বিমল রায়, অ্যাডভোকেট দীপক কুমার ঘোষ, উপজেলা ঘিওর কৃষি অফিসার আশরাফ উজ্জামান, বানিয়াজুরী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কাশেম চতু, উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা বিপ্লব কুমার সরকার, কৃষাণী আয়শা বেগম, বারসিকের কর্মকর্তা সুবীর কুমার সরকার ও মো: নজরুল ইসলাম প্রমুখ।
পিঠা উৎসবের মধ্যে কবিতা পাঠ করেন কবি ডা: আবুল হোসেন। পরে পিঠা তৈরি প্রতিযোগীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন অতিথিরা। উৎসবের আয়োজক সংস্থা বারসিকের আঞ্চলিক সমন্বয়কারী বিমল রায় বলেন, একসময় গ্রামীণ পিঠা উৎসব ছিল বাংলার ঐতিহ্য। শীতের মওসুমের শুরুতে গ্রামে ঘরে ঘরে চালের গুঁড়িকুটা ও পিঠা তৈরির ধুম লেগে যেত। কিন্তু কালের বিবর্তনে এসব সুস্বাদু পিঠাগুলো আজ বিলুপ্তির পথে। তাই পিঠা উৎসবের মাধ্যমে পিঠার সাথে নতুন প্রজন্মের পরিচিত করা এবং গ্রামের সব শ্রেণি-পেশার মানুষের বাঙালির আদি ঐতিহ্য তুলে ধরার লক্ষ্যেই এই পিঠা উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে।

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫