ঢাকা, বৃহস্পতিবার,১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

অবকাশ

সময় এখন আমাদের

তানভীর আহাম্মেদ

২৫ মার্চ ২০১৮,রবিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

৭১, একটি সংখ্যা। ছোট ছোট অনেক ইতিহাসে গড়া একটি সম্পূর্ণ ইতিহাস।২৬ মার্চ, সব কিছু ঘর-আপনজন ত্যাগ করে যোদ্ধারা পা বাড়ায় দেশ রক্ষায়। আগামী প্রজন্মকে স্বাধীনতার মুক্ত খোলা মাঠ উপহার দিয়ে বীর নায়করা নিজের তাজা রক্ত মাটিতে মিশিয়ে রক্ষা করে একটি পতাকা, একটি স্বাধীন মানচিত্র।
বীর সেনাদের বিরত্বকে আমরা সবাই স্মরণ করি। জাতীয় দিবসগুলোতে তাদের স্মরণ করেই আমরা দিবস উদ্ধার করে ছেড়ে দেই। তারা তো তাদের কাজ করে দিলো। আমাদের দায়িত্ব আমরা কতটা করছি। বীর সৈনিক মুক্তিযোদ্ধারা একটা অনুপ্রেরণার নাম। তাদের কাজ থেকে আমরা নিজেদের কতটা অনুপ্রাণিত করছি। বঙ্গবন্ধুর এক ডাকে তারা সবাই একতাবদ্ধ হয়েছিল। দেশ নিয়ে তাদের একটা অনুভূতি ছিল। তাই সেই অনুভূতি থেকে ভালোবাসা আর ভালোবাসা থেকে ভালোবাসার জিনিস রক্ষার প্রত্যয়।
আমরা কি আজো পারছি তাদের থেকে শিক্ষা নিতে? নিজেদের ক্যারিয়ার নিয়ে দৌড়ঝাঁপে আমরা সবাই ব্যস্ত। দেশ রক্ষায় কতটা তৎপর আমরা। মুক্তিযোদ্ধারা আমাদের জন্য সবটাই করে দিয়েছেন। আমাদের অস্ত্র নিয়ে দেশ রক্ষার ব্যাপারটা আপাতত নেই। নিজের জীবন নিয়ে আমরা ব্যস্ত তো, সেখানেই হয়তো দেশ সাজানোর ব্যাপারটা জড়িয়ে আছে। নিজ কাজে শুধু ‘দেশের উপকার না পারি অপকার হয় কিছু করব না’ এই ভাবনা থেকে হয়তো দেশের বিশাল একটা উপকার করে দিতে পারি। সবাই যদি অপকর্ম থেকে বিরত থাকি তাহলেই সুন্দর দেশ। আজ নিজে ভালো কাজ করুন, কাল আপনার দেখাদেখি দুটি লোক করবে। দেশের উন্নতির জন্য আপনার কোনো আইডিয়া নেই তো, তাতে কি। যে করছে তাকে সহযোগিতা করুন, কমপক্ষে তার ভালো কাজটায় অনুপ্রেরণা দিন, পারলে পাঁচটা মানুষের কাছে ভালো করে প্রচার করুন, যাতে ওই লোকটির অনুপ্রেরণা বাড়ে।
দেশ নিয়ে অনুভূতি জন্মাতে হবে, ৭১ এর সঙ্ঘবদ্ধ হওয়ার ইতিহাস থেকে অনুভূতি আর মনোবল নিতে হবে আমাদের। নিতে হবে নতুন কিছু করার প্রত্যয়।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫