ঢাকা, শনিবার,১৪ ডিসেম্বর ২০১৯

ঢাকা

সোনারগাঁওয়ে স্বামী স্ত্রীকে কুপিয়ে পিটিয়ে হত্যার চেষ্টা

সোনারগাঁও (নারায়ণগঞ্জ) সংবাদদাতা

১৮ মে ২০১৮,শুক্রবার, ১৮:০৯


প্রিন্ট

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে পূর্ব শত্রুতা ও পুকুরে বালু ভরাটকে কেন্দ্র করে স্বামী স্ত্রীকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার মোগরাপাড়া ইউনিয়নের নগর সাদিপুর গ্রামে শুক্রবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় শুক্রবার বিকেলে আহত চুন্নু মিয়া বাদী হয়ে সোনারগাঁও থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।
সোনারগাঁও থানায় দায়ের করা অভিযোগ থেকে জানা যায়, উপজেলার মোগরাপাড়া ইউনিয়নের নগর সাদিপুর গ্রামের চুন্নু মিয়ার সাথে একই গ্রামের আলমগীরের স্থানীয় একটি পুকুরে বালু ভরাটকে কেন্দ্র করে শত্রুতা চলে আসছিল।
এ ঘটনার জের ধরে শুক্রবার দুপুরে জুম্মার নামাজ শেষে চুন্নু মিয়া বাড়ি ফেরার পথে আলমগীর গতিরোধ করে গালিগালাজ করছিল। এসময় তাদের মধ্যে তর্কবিতর্ক হয়। তর্কবিতর্কের এক পর্যায়ে আলমগীরের নেতৃত্বে সাব্বির, রকিব, জুম্মন, ইমরান, আব্দুস সালাম, রহিমা বেগমসহ ১০-১২জনের একটি দল লাঠিসোটা, হকিস্টিক, লোহার রড, ধারালে অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে চুন্নু মিয়ার উপর হামলা চালায়।
এসময় চুন্নু মিয়ার ডাক চিৎকারে তার স্ত্রী আরিফা আক্তার এগিয়ে এলে তাকেও পিটিয়ে আহত করে। আহতদের সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় আহত চুন্নু মিয়া বাদী হয়ে সোনারগাঁও থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।
আহত চুন্নু মিয়ার স্ত্রী আরিফা আক্তার বলেন, আমাদের বাড়ির পাশের একটি পুকুর বালু ভরাটকে কেন্দ্র করে আলমগীরের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে শত্রুতা চলে আসছিল। এ শত্রুতাকে কেন্দ্র করে আমার স্বামী চুন্নু মিয়াকে আলমগীরের নেতৃত্বে তার লোকজন কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করে। ঘটনার সময় আমি এগিয়ে গেলে আমাকে পিটিয়ে আহত করে।
অভিযুক্ত আলমগীরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি এ ঘটনার সাথে জড়িত না। বালু ভরাটের কাজ নিয়ে তার সঙ্গে আমার তর্কবিতর্ক হয়েছে।
সোনারগাঁও থানার ওসি মোরশেদ আলম পিপিএম বলেন, স্বামী স্ত্রীকে আহত করার ঘটনায় অভিযোগ গ্রহন করা হয়েছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫