ঢাকা, শনিবার,২০ এপ্রিল ২০১৯

ক্রীড়া দিগন্ত

৯৮’র ফাইনাল পাতানো!

ক্রীড়া প্রতিবেদক

১৯ মে ২০১৮,শনিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

বোমা ফাটালেন ফরাসি ফুটবলের কিংবদন্তি মিশেল প্লাতিনি। ১৯৯৮ সালের বিশ্বকাপের ফাইনালে ব্রাজিল-ফ্রান্স দ্বৈরথ পাতানো ছিল বলেই দাবি করেছেন বর্তমানে বৈশ্বিক ফুটবলে অঙ্গনে নিষিদ্ধ সাবেক সেনসেশন। ফ্রান্সের ইতিহাসের ওই দ্বিতীয় বিশ্বকাপ আয়োজনে নেতৃত্বের ভূমিকায় ছিলেন প্লাতিনি। যৌথ কমিটির অন্যতম প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করা তিন বারের ব্যালন ডি’অর জয়ী ফরাসি সুপারস্টার জানান, গ্রুপ পর্বের ড্রতেই আমরা কারসাজি করেছি। ফাইনালের আগে যেন কোনোভাবেই ফ্রান্সকে মুখোমুখি হতে না হয় ব্রাজিলের তা চূড়ান্ত করেছি। মূলত সবার প্রত্যাশার বাস্তবায়ন করতে আমরা নিশ্চিত করেছি টুর্নামেন্টের ড্রিম ফাইনাল।
প্যারিসের পার্ক ডি ফ্যান্সে অনুষ্ঠিত আটানব্বইয়ের স্বপ্নের ফাইনালের অন্যতম আরেকটি আলোচিত ইস্যু হিসেবে শিরোনাম দখলে নেয় দুর্দান্ত ফর্মে থাকা ব্রাজিলীয় স্ট্রাইকার রোনালদোর পেটের পীড়ায় আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা। ফিটনেস ঘাটতি নিয়ে শিরোপা লড়াইয়ে অংশ নিলেও মাঠে কার্যত নিষ্ক্রিয় ছিলেন কিংবদন্তি ওই স্ট্রাইকার। জিদানে উজ্জীবিত ফ্রান্স প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ জয়ের কৃতিত্ব রচনা করে ফাইনালে ব্রাজিলকে ৩-০ গোলে উড়িয়ে।
সম্প্রতি ফ্রান্স ব্লুকে দেয়া সাক্ষাৎকারে প্লাতিনি বলেন, ‘গ্রুপ পর্বের ড্র ও শিডিউল চূড়ান্ত করার সময় আমরা কিছুটা চালাকির আশ্রয় নেয়। এ ক্ষেত্রে ‘সি’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হওয়ার চ্যালেঞ্জ ছিল ফরাসিদের। আর লাতিন জায়ান্ট ব্রাজিলের সামনে সমীকরণ দাঁড়ায় ‘এ’ গ্রুপের সেরা হিসেবে নকআউটে ওঠার। তাহলে ফাইনালে আগে দল দু’টির মুখোমুখি হওয়ার কোনো ঝুঁকিও থাকবে না। দীর্ঘ ছয় বছর ধরে আমরা বিশ্বকাপের প্রস্তুতি নিয়েছি। কিছুটা অ্যাডভ্যান্টেজ তো আমাদের প্রাপ্যই ছিল! আর ফ্রান্স প্রথম দেশ হিসেবে এটি করেনি। বরং আয়োজকদের প্রত্যেকেই বাড়তি অ্যাডভ্যান্টেজ আদায় করেছে প্রতিটি বিশ্বকাপে। ব্রাজিল-ফ্রান্স সবার কাছেই রূপ নিয়েছিল স্বপ্নের ফাইনাল। আমরা ভক্তদের আকাক্সক্ষার বাস্তবায়ন করেছি।’
১৯৯৮ সালের ফরাসি বিশ্বকাপের সফল আয়োজনে শিগগিরই ইউরোপীয় ফুটবলের শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তার পদে অধিষ্ঠিত হন প্লাতিনি। দখলে নেন মহাদেশীয় ফুটবল উয়েফার প্রধানের পদও। একই সময়ে ফিফাতে প্রতিষ্ঠিত করেন দাপট। তবে ২০১৫ সালে দুর্নীতির দায়ে ফুটবল থেকে বিতাড়িত হয়েছেন ফ্রান্সের সাবেক কিংবদন্তি ফুটবলার। ছয় বছরের জন্য নিষিদ্ধ হন ফিফার তহবিল থেকে অবৈধভাবে অর্থ গ্রহণের দায়ে। সম্প্রতি আপিলের রায়ে তার নিষেধাজ্ঞার শাস্তির মেয়াদ দুই বছর কমে দাঁড়িয়েছে চার বছরে।

 

 

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫