ঢাকা, শনিবার,২০ এপ্রিল ২০১৯

বিবিধ

‘মুসলিম বিশ্বের সঙ্কটগুলোর কারণ কুরআন থেকে মুসলমানদের দূরে সরে যাওয়া’

নয়া দিগন্ত অনলাইন

১৯ মে ২০১৮,শনিবার, ১০:৫৮ | আপডেট: ১৯ মে ২০১৮,শনিবার, ১১:১০


প্রিন্ট
‘মুসলিম বিশ্বের সঙ্কটগুলোর কারণ কুরআন থেকে মুসলমানদের দূরে সরে যাওয়া’

‘মুসলিম বিশ্বের সঙ্কটগুলোর কারণ কুরআন থেকে মুসলমানদের দূরে সরে যাওয়া’

ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনি বলেছেন, ফিলিস্তিনে ইসরাইলি অপরাধযজ্ঞসহ মুসলিম বিশ্বের সংকটগুলোর কারণ হল পবিত্র কুরআন থেকে মুসলমানদের দূরে সরে যাওয়া। মুসলিম জাতি ও সরকারগুলোকে ইহুদিবাদী অপরাধযজ্ঞের মোকাবেলায় ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

তিনি আরো বলেন, খোদায়ি বিধানের আলোকে অবশেষে শত্রুদের কবল থেকে ফিলিস্তিন মুক্ত হবে। ফিলিস্তিনের মুক্তির বিষয়টি সুনিশ্চিত ও অনিবার্য। খোদায়ি বিধান ও বাস্তবতার মোকাবেলায় মার্কিন সরকার ও তার সেবাদাসরা কিছুই করতে পারবে না। ইসরাইল খুব বেশি দিন টিকে থাকবে না। আগামী ২৫ বছরের আগেই ইসরাইল ধ্বংস হবে। সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নভুক্ত ও বর্তমানে স্বাধীন কয়েকটি মুসলিম দেশ যে স্বাধীন হবে এটা কিছুকাল আগে কেউ কল্পনাও করেনি। 

সোমবারের বর্বর হামলায় অন্তত ৬০ ফিলিস্তিনি শহীদ ও ৩,০০০ আহত হয়েছেন। সর্বোচ্চ নেতা বলেন, অনেকে অভিযোগ করেন, এমন ঘটনার পরও কেন ইসরাইলের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয় না আমেরিকা। তার কারণ হচ্ছে- আমেরিকা ও বহু পশ্চিমা দেশ এই অপরাধযজ্ঞে সহযোগিতা করে থাকে।

খামেনি বলেন, ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরাইলের অপরাধযজ্ঞের মুখে পবিত্র কুরআনের শিক্ষা অনুযায়ী মুসলিম উম্মাহ ও মুসলিম সরকারগুলো কঠোর অবস্থান নিতে বাধ্য। পবিত্র কুরআন আমাদেরকে বলছে ধর্মের বিষয়ে শত্রুদের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নিতে এবং নিজেদের মধ্যে দয়ামায়া প্রতিষ্ঠা করতে কিন্তু বর্তমানে কুরআন থেকে দূরে সরে যাওয়ার কারণে আমরা মুসলমানদের মধ্যে যুদ্ধ-বিগ্রহ ও অনৈক্য দেখছি এবং কাফেরদের কাছে নতিস্বীকার করতে দেখছি।

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ ইসরাইলকে ‘বর্বর ও দুর্বৃত্ত বর্ণবাদী সরকার’ বলে ফিলিস্তিনি জনগণের ওপর সাম্প্রতিক গণহত্যার নিন্দা জানিয়েছেন। পাশাপাশি তিনি এ ঘটনার স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ আন্তর্জাতিক তদন্ত দাবি করেছেন। তুরস্কের ইস্তাম্বুল শহরে ইসলামি সহযোগিতা সংস্থা বা ওআইসি’র পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সম্মেলনে শুক্রবার এসব কথা বলেছেন জাওয়াদ জারিফ।

জাওয়াদ জারিফ বলেন, গাজায় গণহত্যার পর বর্বর ও দুর্বৃত্ত বর্ণবাদী এই সরকারের অবসান চাওয়ার অধিকার আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের রয়েছে। তিনি জোর দিয়ে বলেন, ‘ওআইসি’র উচিত- গাজা উপত্যকায় গণহত্যার জন্য দোষীদের শাস্তির আওতায় আনার দাবি জোরদার করা। এজন্য স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ আন্তর্জাতিক তদন্তসহ জাতিসঙ্ঘ ব্যবস্থার আওতায় আমাদের সুস্পষ্ট পদক্ষেপ নেয়া দরকার। পাশাপাশি ফিলিস্তিনি জনগণের জন্য আন্তর্জাতিক সুরক্ষা দেয়া জরুরি।’

 

 

অন্যান্য সংবাদ

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫