ঢাকা, মঙ্গলবার,১৯ মার্চ ২০১৯

বরিশাল

অন্যের স্ত্রী ভাগিয়ে নেয়া পুলিশ ফের কারাগারে

ঝালকাঠি সংবাদদাতা

০৫ জানুয়ারি ২০১৬,মঙ্গলবার, ১৪:২৪


প্রিন্ট

ঝালকাঠিতে অন্যের স্ত্রীকে ভাগিয়ে নেয়া মামলার প্রধান আসামি পুলিশ কনস্টেবল জিয়াদুল হাওলাদারের জমিন বাতিল করে তাকে ফের কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ঝালকাঠির সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জাহেদ আহমেদ এ আদেশ দেন। গত ১৩ ডিসেম্বর একই আদালত তার জামিন মঞ্জুর করেছিল। জামিনে বের হয়ে মামলার বাদি কামাল হোসেন টিটুকে গত ২০ ডিসেম্বর মোটরসাইকেল চাপা দিয়ে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হওয়ায় আদালত জামিন বাতিলের আদেশ দেন আদালত। বাদিপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট আব্দুল আলীম, অ্যাডভোকেট মাহাবুবুর রহমান, অ্যাডভোকেট সোহেল আকন, অ্যাডভোকেট শামীম আলম অ্যাডভোকেট মানিক আচার্য্য ও অ্যাডভোকেট আককাস সিকদার। অভিযুক্ত পুলিশ কনস্টবল মো. জিয়াদুল হাওলাদার ঝালকাঠি পুলিশ লাইনে কর্মরত। তার বাড়ি পিরোজপুর জেলার কাউখালী উপজেলার চিরাপাড়া গ্রামে। তিনি ওই গ্রামের জলিল হাওলাদারের পুত্র।
অভিযোগে প্রকাশ ঝালকাঠি শহরের পূর্ব চাদঁকাঠি জেলেপাড়ার মৃত সামসুর রহমানের ছেলে সদ্য কুয়েত ফেরত কামাল হোসেন টিটুর স্ত্রী ফেরদৌসী আক্তার মুক্তাকে নিয়ে গত ২৯ নভেম্বর কনস্টেবল জিয়াদুল পালিয়ে যান। এ ব্যাপারে কামাল হোসেন বাদি হয়ে গত ৭ ডিসেম্বর ঝালকাঠির সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ব্যাভিচারের অভিযোগে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় কনস্টেবল জিয়াদুল ও মুক্তাকে আসামি করা হয়। আদালত জিয়াদুলের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা এবং মুক্তার বিরুদ্ধে সমন জারি করে।
গত ১০ ডিসেম্বর ঝালকাঠি থানার এসআই গৌতম কুমার ঘোষ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের গ্রেপ্তারি পরোয়ানা বলে ঝালকাঠি পুলিশলাইন থেকে জিয়াদুলকে গ্রেপ্তার করে। গত ১৩ ডিসেম্বর আদালত জিয়াদুলের জামিন মঞ্জুর করে।
জামিন পেয়ে কারাগার থেকে বের হয়ে কনস্টেবল জিয়াদুল মামলার বাদি কামাল হোসেন টিটুকে নানাভাবে জীবননাশের হুমকি দিতে থাকেন বলে অভিযোগ রয়েছে। গত ২০ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় ঝালকাঠি ডিসি অফিসের সামনের রাস্তায় জিয়াদুল মোটরসাইকেল চাপা দিয়ে কামাল হোসেনকে হত্যার চেষ্টা করেন বলেও অভিযোগ ওঠেছে। এ ব্যাপারে ঝালকাঠি থানায় ১০০১ নং জিডি করা হয় এবং সোমবার আদালতে জামিন বাতিলের আবেদন করা হয়।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫