Naya Diganta

প্রথম আঘাত হানলেন মাশরাফি

নয়া দিগন্ত অনলাইন

২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮,বৃহস্পতিবার, ১৩:৩০


প্রথম আঘাত হানলেন মাশরাফি

প্রথম আঘাত হানলেন মাশরাফি

আবাহনীর অধিনায়ক মাশরাফি মতুর্জা প্রতিপক্ষ শিবিরে প্রথম আঘাত হানলেন। সাজঘরে ফেরালেন জিয়াউর রহমানকে। মাত্র ১ রান করে বোল্ড হন শেখ জামালের এই ওপেনার।

এখন ক্রিজে এসেছেন জালাজ সাক্সেনা। জুটি বেধেছেন সৈকত আলীর সাথে। দলের সংগ্রহ দাঁড়িয়েছে ১ উইকেটে ২২ রান।

সকালে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে এনামুল হকের সেঞ্চুরিতে ২৭০ রান করে আবাহনী লিমিটেড।

 

মাশরাফিদের সংগ্রহ ২৭০

ডিপিএলে শেখ জামালকে ২৭১ রানের লক্ষ্য দিয়েছে মাশরাফির আবাহনী লিমিটেড। সকালে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে এনামুলের সেঞ্চুরিতে নির্ধারিত ওভারে ২৭০ রান করে তারা। উইকেট হারায় সাতটি।

 

রবিউলের বোলিং তাণ্ডব

এনামুল হক ১১৬ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলে রবিউল হকের বলে সাজঘরে ফিরেন। এরপর ক্রিজে এসেছিলেন অধিনায়ক মাশরাফি মতুর্জা। জুটি বেধেছিলেন মোসাদ্দেকের সাথে। তবে তা বেশিক্ষণ স্থায়ী হলো না। রবিউলের তাণ্ডবে এক ওভারেই বিদায় নিলেন আবাহনীর এই দুই ব্যাটসম্যান।

৪৪তম ওভারের দ্বিতীয় বলে শেখ জামালের রবিউলের শিকার হন মোসদ্দেক। হাফসেঞ্চুরি থেকে মাত্র ১ রান দুরে থাকতেই শিকার হন তিনি। ফিরে যান ৪৯ রানে।

পরের বলে নতুন ব্যাটনসম্যান মেহেদী হাসান মিরাজ ১ রান নিয়ে প্রান্ত বদল করেন। স্ট্রাইকে মাশরাফি। রবিউলের বলে বোল্ড হন তিনি। ফিরে যান মাত্র ৬ রানে।

এখন ক্রিজে আছেন সানজামুল ইসলাম। জুটি বেধেছেন মিরাজের সাথে। দলের সংগ্রহ বাড়িয়ে যাচ্ছেন তারা।

 

এনামুলের সেঞ্চুরি

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে (ডিপিএল) চোখ ধাঁধানো এক সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন ওপেনার এনামুল হক বিজয়। ১০৯ বলে ৬ বাউন্ডারি ও ৩ ছক্কায় ঝড়ো সেঞ্চুরি করেছেন এই হার্ডহিটার।

সকালে টস জিতে শেষ জামালকে ফিল্ডিং করতে পাঠায় আবাহনী। ব্যাট করতে নেমে ওপেনার এনামুল শুরু থেকেই প্রতিপক্ষের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে থাকেন। চার-ছক্কায় দ্রুত শতক তুলে নেন। অপরপ্রান্তে একের পর এক ব্যাটসম্যান সাজঘরে ফিরলেও একপ্রান্ত আগলে থেকে রান তুলে যাচ্ছিলেন এনামুল।

আবাহনীর নেতৃত্ব দিচ্ছেন জাতীয় দলের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি মর্তুজা।

Logo

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,    
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫