বিশ্বের উষ্ণতম বছর ২০১৬

নয়া দিগন্ত অনলাইন

ধীরে ধীরে বাড়ছে পৃথিবীর উষ্ণতা। ১৮৮০–র দশক থেকে প্রতিবছর পৃথিবীর গড় তাপমাত্রার রেকর্ড রাখা শুরু হয়েছিল। আর তখন থেকে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে উষ্ণতম বছর ছিল ২০১৬ সালটাই। জানিয়েছে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। বুধবার সংস্থার পক্ষ থেকে প্রকাশিত একটি রিপোর্টে এমনই জানান হয়েছে।
২০১৫ সাল ছিল বিংশ শতাব্দীর উষ্ণতম বছর। পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা ছিল ১.‌৬৯ ডিগ্রি ফারেনহাইট। সেখানে ২০১৬ সালে গড় তাপমাত্রা বেড়েছে ০.‌০৭ ডিগ্রি ফারেনহাইট। শুধু যে তাপমাত্রা বাড়ছে তাই নয়, জাতীয় সমুদ্র এবং আবহমণ্ডল প্রশাসন (‌ন্যাশনাল ওশিয়ানিক অ্যান্ড অ্যাটমোস্ফেরিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন বা এনওএএ)‌‌–এর পৃথক একটি সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে, গত কয়েক বছরের তুলনায় বরফ গলার পরিমাণও বেড়েছে।
মূলত খনিজ তেল এবং প্রাকৃতিক গ্যাসের ব্যবহার বেড়ে যাওয়ার ফলে বাতাসে কার্বন ডাই–অক্সাইড, মিথেন এবং অন্যান্য দূষিত পদার্থের পরিমাণ বাড়ছে। আর সেকারণেই গ্রীন হাউস গ্যাসও বায়ুস্তরে বেড়ে চলেছে। ফলে গোটা বিশ্বের তাপমাত্রা বাড়ছে। এছাড়া প্রশান্ত মহাসাগর এলাকায় এল নিনোর প্রভাবেও বেড়েছে তাপমাত্রা। কিন্তু তাপমাত্রা বাড়ার ফলে কী অসুবিধা হবে?‌
নাসার পক্ষ থেকে জানান হয়েছে, তাপমাত্রা বাড়লে দুই মেরুর বরফ গলার পরিমাণও বাড়তে থাকে। ফলে পানিস্তর বাড়ে। এছাড়া বিশ্বের প্রতিটি জায়গায় তাপমাত্রার তারতম্যও দেখা যায়। কোথাও বেশি বৃষ্টি আবার কোথাও খরা। ফলে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হতে দেখা যায়। বিশ্বায়নের ফলে কলকারখানার পরিমাণ বৃদ্ধি, বনজঙ্গল কেটে ফেলাও পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা বৃদ্ধির অন্যতম কারণ বলে মনে করা হচ্ছে।‌

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.