ঢাকা, মঙ্গলবার,৩১ মার্চ ২০২০

অ্যাথলেটিকস

বাকু গেমসে বাংলাদেশের প্রথম স্বর্ণ

নয়া দিগন্ত অনলাইন

১৪ মে ২০১৭,রবিবার, ২১:৩৪


প্রিন্ট
স্বর্ণজয়ী দুই বাংলাদেশী শুটার

স্বর্ণজয়ী দুই বাংলাদেশী শুটার



আজারবাইজানের বাকুতে প্রথম দিনে রাব্বির প্রথম রৌপ্য জয়ের পর নানা মাধ্যমে নেতিবাচক প্রচারে জর্জরিত হয়েছেন আব্দুল্লা হেল বাকি। স্বর্ণ জয় করে সেটিরই জবাব দিলেন দ্বিতীয় দিনে।

২০১০ এর ঢাকা এসএ গেমসের পর আন্তর্জাতিক ইভেন্টে স্বর্ণ যেন সোনার হরিণই ছিল তার কাছে। অবশেষে স্বর্ণ উঠল গলায়। যদিও এককে নয়। স্বর্ণ জিতেছেন মিশ্র দ্বৈতে মহিলা শুটার সৈয়দা আতকিয়া হাসান দিশার সাথে। চতুর্থ ইসলামি সলিডারিটি গেমসের দ্বিতীয় দিনে তারা দলগত ১০ মিটার এয়ার রাইফেলে দেশকে স্বর্ণপদক উপহার দিলেন।


ঢাকা এসএ গেমসে বাকি ১০ মিটার এয়ার রাইফেলের দলগত ইভেন্টে স্বর্ণ জিতেছিলেন আসিফ হোসেন ও শোভন চৌধুরীকে নিয়ে। গত এসএ গেমসে একই ইভেন্টে রৌপ্য জিতেছিলেন বাকি, শোভন চৌধুরী ও অঞ্জন কুমার। তার আগে গ্লাসগো কমনওয়েলথ গেমসে ১০ মিটার এয়ার রাইফেলে পেয়েছিলেন রৌপ্যপদক।

বারবার স্বর্ণের কাছ থেকে ফিরে এসেও হাল ছাড়েননি। সাধনা করে গেছেন। যার ফল তিনি পেলেন অর্ধযুগ পর। বাকুতে পদক জয়ের পরপরই নিজের ফেসবুক ওয়ালে সাফল্যের জন্য বাকি আল্লার কাছে শুকরিয়া আদায় করেন। সমর্থন দেয়ার জন্য ধন্যবাদ জানান সকলকে।


ইসলামি সলিডারিটি গেমসে এটি বাংলাদেশের প্রথম স্বর্ণ জয়। এটি শুটিংয়ে নতুন ইভেন্ট। সর্বশেষ দিল্লিতে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে এ ইভেন্টটি পরীক্ষামূলকভাবে হয়েছিল। এবার সলিডারিটি গেমসে রাখা হয়েছে এ ইভেন্টটি। বাকি-দিশা জুটি ফাইনালে ৫-১ পয়েন্টে হারিয়েছেন ইরানের খেদমতি-নুরুজিয়ান জুটিকে। এ ইভেন্টে ব্রোঞ্জ জিতেছেন তুরস্কের ওমর-সীমানুর জুটি।


ইসলামিক সলিডারিটি গেমসে এর আগে বাংলাদেশের সেরা সাফল্য ছিল ২০১৩ সালে ইন্দোনেশিয়ায়। সেবার আর্চারিতে একটি রূপা ও তায়কোয়ানদোতে একটি ব্রোঞ্জ জিতেছিল বাংলাদেশ। এর আগে ২০১০ সালে দ্বিতীয় সলিডারিটি গেমসটি শেষ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়নি। ২০০৫ সালে সৌদি আরবে অনুষ্ঠিত আসর থেকে খালি হাতে ফিরেছিল বাংলাদেশ।

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫