ঢাকা, রবিবার,৩১ মে ২০২০

ইসলামী দিগন্ত

শিরক আল্লাহ ও নিজের ওপর জুলুম

সৈয়দ রশিদ আলম

২৬ জানুয়ারি ২০১৮,শুক্রবার, ০০:০০


প্রিন্ট

মহান আল্লাহর দরবারে তাঁর দাসদাসীদের এবাদত কবুলের পূর্বশর্ত হচ্ছে হালাল রিজিক ও শিরকমুক্ত থাকা। আমাদের দেশের কুরআনুল কারিমের পরিপূর্ণ চর্চা না থাকার কারণে ইচ্ছায় বা অনিচ্ছায় অনেকেই এবাদতের সাথে শিরককে জড়িয়ে ফেলেন। দুঃখজনকভাবে আমরা দেখি, মহান আল্লাহর সাহায্যপ্রত্যাশী না হয়ে কুমির, কচ্ছপ, বানরের কাছে সাহায্য চাওয়া হচ্ছে। একদল মানুষের বিশ্বাস, এসব জীবজন্তু অলৌকিক মতা রাখে। যে কারণে তারা আল্লাহর সাহায্য না চেয়ে তাদের কাছে সাহায্যপ্রত্যাশী হচ্ছেন। মহান আল্লাহ বলেন, ‘আল্লাহকে বাদ দিয়ে তোমরা যাদের ডাকো তারা কিছুই সৃষ্টি করে না, তাদেরই সৃষ্টি করা হয়, সবাই তোমাদের মতো বান্দা। তারা মৃত-প্রাণহীন এবং কবে আবার পুনরুত্থিত হবে তাও তারা জানে না’ (১৬ : ২০-২১, আরো দেখুন ২৫ : ৩)। ‘আল্লাহর সাথে অপর কোনো উপাস্য স্থির কোরো না, করলে তুমি নিন্দিত ও নিঃসহায় হয়ে পড়বে। তুমি অন্য কোনো উপাস্যকে আল্লাহর অংশীদার কোরো না, করলে তুমি শাস্তি পাবে’ (২৬ : ২১৩)। মহান আল্লাহ আরো বলেন, ‘তাদের অধিকাংশই আল্লাহর প্রতি ঈমান আনে না তাঁর সাথে শরিক সাব্যস্ত না করে’ (১২ : ১০৬)। তোমরা ও তোমাদের পূর্ববর্তী (রাসূলদের) প্রতি এ ওহিই করা হয়েছে, তুমি যদি আল্লাহর সাথে কোনো শরিক সাব্যস্ত করো, তবে তোমার সব আমল নিষ্ফল হয়ে যাবে এবং তুমি অবশ্যই তিগ্রস্তদের অন্তর্ভুক্ত হবে। বর্তমানে আমাদের দেশে কুরআনের আলোয় আলোকিত না হয়ে, কুরআনের কাছ থেকে সহায়তা না নিয়ে একদল দুষ্টুপ্রকৃতির ধর্মব্যবসায়ীদের কাছে মানুষ ছুটে যাচ্ছে। এই ব্যবসায়ীরা সব সমস্যার সমাধান দেয়ার গ্যারান্টি দিচ্ছে। কিন্তু তাদের জীবনে কুরআনের কোনো শিাই নেই। মহান আল্লাহ বলেন, ‘আল্লাহ ব্যতীত কোনো উপাস্য নেই, ইহকাল ও পরকালে প্রশংসা তারই এবং বিধানও তারই’ (২৮ : ৭০)। ‘তুমি আল্লাহর সাথে উপাস্যকে ডেকো না, তিনি ছাড়া অন্য কোনো উপাস্যই নেই, আল্লাহর সত্তা ছাড়া সবই ধ্বংস হবে, হুকুম তাঁরই এবং তাঁরই দিকে তোমাদের ফিরিয়ে আনা হবে’ (২৮ : ৮৮)।
মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন পরিষ্কার ভাষায় তাঁর অনুগত বান্দাদের শিা দিচ্ছেনÑ একমাত্র তিনিই সাহায্যকারী। অন্য কেউ সাহায্যকারী নেই। মহানবী রাসূলে পাক সা:, তাঁর পরিবার ও সাহাবীগণ সব সঙ্কটের সময় সরাসরি মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের সাহায্য চেয়েছেন এবং পেয়েছেন। পরবর্তী যুগের বুজুর্গদের জীবনীতে আমরা সেটাই দেখতে পাই। আমাদেরও সব অন্ধকারকে পরিত্যাগ করে কুরআনুল কারিমের আলোকে এবাদত করতে হবে, একমাত্র আল্লাহর সাহায্য চাইতে হবে। কোনোভাবেই শিরক করা যাবে না। যদি এবাদতের সাথে শিরক জড়িয়ে পড়ে, তাহলে সব এবাদত আল্লাহ পাক ধ্বংস করে দেবেন।
লেখক : প্রবন্ধকার

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫