ঢাকা, বৃহস্পতিবার,২৮ মে ২০২০

শিক্ষা

ঢাবিতে ভর্তি জালিয়াতি : অভিযুক্তদের পরীক্ষা নেয়ায় ক্লাস বর্জন

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক

২৬ এপ্রিল ২০১৮,বৃহস্পতিবার, ১৯:৩৫


প্রিন্ট
ঢাবিতে ভর্তি জালিয়াতি : অভিযুক্তদের পরীক্ষা নেয়ায় ক্লাস বর্জন

ঢাবিতে ভর্তি জালিয়াতি : অভিযুক্তদের পরীক্ষা নেয়ায় ক্লাস বর্জন

বুধবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের মুখে ভর্তি জালিয়াতিতে অভিযুক্ত পাঁচ শিক্ষার্থীর পরীক্ষা নেয়া থেকে বিরত থাকে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। কিন্তু ঠিক পরের দিনই (বৃহস্পতিবার) অভিযুক্তদের পরীক্ষা নিতে গেলে পুনরায় বিক্ষোভ করে ইন্সটিটিউটের শিক্ষার্থীরা। পরীক্ষা শেষে পুনরায় বিক্ষোভ করে শিক্ষার্থীরা। এ ঘটনা খতিয়ে দেখতে ইন্সটিটিউটের পরিচালককে প্রধান করে ৬ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার ৩য় বর্ষের ৫০৩ নং কোর্সের মিডটার্ম পরীক্ষা নিয়ে এ ঘটনা ঘটে।

বিভাগের শিক্ষার্থীরা জানান, সকাল ১০টায় সবাই মিডটার্ম পরীক্ষা দেওয়ার জন্য পরীক্ষার আসনে বসে। প্রশ্নপত্র দেওয়ার পর এই সময় একজন সহকারী প্রক্টরসহ কয়েকজন শিক্ষক জালিয়াতিতে অভিযুক্তদের নিয়ে হলে প্রবেশ করে। তাদের পরীক্ষা দেয়ানোর চেষ্টা করে। পরে ছাত্ররা আপত্তি করলে বিভাগের শিক্ষকরা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে আমাদেরকে কিছু জানানো হয়নি বলে মন্তব্য করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে কোনো বাধা নেই জানিয়ে অভিযুক্তদের পরীক্ষা নেন তারা। পরীক্ষা শেষে সকাল সাড়ে ১১টায় ইন্সটিটিউটের সকল ব্যাচের শিক্ষার্থীরা অভিযুক্তদের বিচারের দাবিতে ওই দিনের ক্লাস বর্জন করে।

জানতে চাইলে বিভাগের শিক্ষার্থী সজীব বলেন, আমরা কোনো জালিয়াতকারীর সাথে ক্লাস-পরীক্ষায় অংশ নিতে চাইনা। তাদের বহিষ্কারের দাবিতে আমাদের সাথে সকল ব্যাচ ক্লাস বর্জন করেছে।
ছাত্রদের বিক্ষোভের ঘটনায় ইনস্টিটিউটের শিক্ষকরা বিকেলে এক জরুরি অ্যাকাডেমিক সভায় মিলিত হন। সেখানে ইনস্টিটিউট পরিচালক অধ্যাপক ড. তানিয়া রহমানকে প্রধান করে ছয় সদস্যের কমিটির ঘোষণা দেয়া হয় ছাত্রদের দাবির বিষয়টি সমাধানের জন্য।

এ বিষয়ে বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মুহাম্মদ মাইন উদ্দিন মোল্লা জানান, ছাত্ররা জালিয়াতিতে অভিযুক্তদের সঙ্গে পরীক্ষা দিবে না বলে বিক্ষোভ করছে। কিন্তু অভিযোগ প্রমাণিত নয়। এজন্য আমরা অভিযুক্তদের পরীক্ষা নিয়েছি। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিলে আমরা কার্যকর করব।

এ বিষয়ে ভিসি অধ্যাপক আখতারুজ্জামান বলেন, অভিযুক্তদের নাম গণমাধ্যমে আসছে। তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করছে সরকারি সংস্থা। ডিজিটাল জালিয়াতি হওয়ায় প্রমাণ করতে দেরি হচ্ছে। তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের ৯ জানুয়ারি সিআইডি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি জালিয়াতিতে অভিযুক্ত দুইজনকে আটক করে। আটককৃতরা ২০১৬-১৭ সেশনে ভর্তি হয়েছে এমন ১৫ জনের নাম প্রকাশ করে। এই ১৫ জনের মধ্যে সমাজ কল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের ছয় জনের নাম গণমাধ্যমে আসে। তারা হলেন হাসিবুর রশীদ, মেহেদী, গালিব, সৌভিক, রাকিবুল ও সালমান এফ রহমান। কিন্তু কর্তৃপক্ষ অভিযুক্তদের বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫