বিসিএলের স্পন্সর মিনিস্টার ফ্রিজ

ক্রীড়া প্রতিবেদক

কয়েক বছর আগে স্পন্সরের অভাবে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ লিগ (বিসিএল) শুরু করা যাচ্ছিল না। আর এখন এমন অবস্থা যে স্পন্সরের ছড়াছড়ি পেশাদার ফুটবল লিগের এই সেকেন্ড টায়ারে। বিসিএলের চতুর্থ আসর মাঠে গড়াচ্ছে ২৬ নভেম্বর। আট দলের দুই পর্বের এই লিগের টাইটেল স্পন্সর মিনিস্টার ফ্রিজ। সাথে প্রেজেন্টিং স্পন্সর প্রিমিয়ার ব্যাংক। যারা গত বছর মূল পৃষ্ঠপোষকের খেতাব পেয়েছিল। এ দুই পৃষ্ঠপোষকের পাশে চারটি কো-স্পন্সরও পেয়েছে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ লিগ। এগুলো হলো প্রগতি ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড, নভোএয়ার ও ট্রেজার সিকিউরিটিস লিমিটেড।
পেশাদার লিগ কমিটির চেয়ারম্যান আবদুস সালাম মুর্শেদী জানান, ‘মাঠে ফুটবল থাকা এবং সাফল্যের যে ধারাবাহিকতা চলছে, তার ফলস্বরূপ এবার বিসিলে এত স্পন্সর।’ গতকাল লিগের লোগো উন্মোচন অনুষ্ঠান এবং সংবাদ সম্মেলনে স্পন্সর মানি সম্পর্কে কিছুই বলেননি বাফুফের এই সিনিয়র সহসভাপতি। তবে ফেডারেশনের অন্য সূত্র বলছে, মূল পৃষ্ঠপোষক হিসেবে ২০ লাখ টাকা দিচ্ছে মিনিস্টার ফ্রিজ। কো-স্পন্সরগুলো থেকে আসছে ১৪-১৫ লাখ টাকার মতো। অবশ্য এই লিগের বাজেট ৭০ লাখ টাকা এমন তথ্য দেন সালাম মুর্শেদী। এর মধ্যে অংশ নেয়া আট দলকে পাঁচ লাখ টাকা করে দেয়া হচ্ছে। এ ছাড়া চ্যাম্পিয়ন দল পাঁচ লাখ ও রানার্সআপ দল দুই লাখ টাকা পাবে।
প্রতি ম্যাচের সেরা খেলোয়াড়কে আকর্ষণীয় পুরস্কার দেয়া হবে মিনিস্টার হাইটেক পার্ক লিমিটেডের চেয়ারম্যান ও এমডি এম এ রাজ্জাক খান এ তথ্য দেন।
বঙ্গবন্ধু স্টোডিয়ামে শুরু হওয়া লিগে প্রতিনিধিত্ব করছে উত্তর বারিধারা অগ্রণী ব্যাংক আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ। ভিক্টোরিয়া, ওয়ারী, ইয়ংমেন্স কাব, ফকিরের পুল, টিঅ্যান্ডটি কাব ও বাংলাদেশ পুলিশ। দু’টি দল প্রিমিয়ারে উঠবে। নেমে যাবে একটি দল। কমলাপুরের টার্ফ ব্যবহারে ফিফার সবুজ সঙ্কেত মিললেই বঙ্গবন্ধু ও কমলাপুর স্টেডিয়ামে হবে খেলা। সালাম মুর্শেদী জানান, আগামীতে এই লিগের আগে ও পরে দু’টি টুর্নামেন্ট হবে। যাতে বিসিএলের একেকটি কাব মওসুমে ৩০টি করে ম্যাচ পায়। এবার শুধু লিগ খেলে ১৪ ম্যাচ পাচ্ছে একেকটি দল।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.